৩১.৭৬ কোটি টাকার নকল ও ভেজাল ওষুধ জব্দ : সংসদে স্বাস্থ্যমন্ত্রী

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী জাহিদ মালেক জানিয়েছেন, জনস্বাস্থ্যের নিরাপত্তার স্বার্থে নকল-ভেজাল ওষুধ বিক্রির বিরুদ্ধে সরকার কঠোর অবস্থার অবলম্বন করছে। ওষুধের অনিয়ম প্রতিরোধের লক্ষ্যে বিদ্যমান ওষুধ আইনকে আরও যুগোপযোগী ও কঠোর শাস্তির বিধান রেখে প্রস্তাবিত আইন অনুমোদনের জন্য প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

তিনি বলেন, ৪৪টি প্রতিষ্ঠান সিলগালা করা হয়েছে এবং আনুমানিক ৩১.৭৬ কোটি টাকা মূল্যের নকল ও ভেজাল ওষুধ জব্দ ও ধ্বংস করা হয়েছে। এছাড়া হাইকোর্টের নির্দেশনা মোতাবেক আনুমানিক ৪৬.৬২ কোটি মূল্যের মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ ধ্বংস করা হয়।

রোববার (৯ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে জাতীয় সংসদে প্রশ্নোত্তর পর্বে তিনি এসব তথ্য জানান।

সরকারি দলের সদস্য বেনজীর আহমদের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী জানান, নকল-ভেজাল ওষুধ উৎপাদন ও বাজারজাতকরণের সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অধীন ওষুধ প্রশাসন অধিদফতর ও অন্যান্য আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করে সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করে আসছে। নকল ও ভেজাল ওষুধ উৎপাদন ও বিক্রির দায়ে ৩৯ জন আসামিকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড এবং ৪৪টি প্রতিষ্ঠান সিলগালা করা হয়েছে। প্রায় ৩২ কোটি টাকা মূল্যের নকল-ভেজাল ওষুধ জব্দ ও ধ্বংস করা হয়েছে।

তিনি বলেন, ১ জানুয়ারি ২০১৯ থেকে ৩১ ডিসেম্বর ২০১৯ পর্যন্ত সারাদেশে নকল ও ভেজাল ওষুধ উৎপাদন ও বিক্রির দায়ে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ভ্রাম্যমাণ আদালতে ২১৪৫টি মামলা দায়ের করে ১২ কোটি ৪১ লাখ ৬ হাজার ৪৮৪ টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে। এছাড়া ৩৯ জন আসামিকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড প্রদান করা হয়েছে।

এইচএস/আরএস/এমকেএইচ

0 Comments

There are no comments yet

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

eight + eight =

Back to top